করোনায় গণপরিবহনে চলাচল

 

মনিরুজ্জামান রাফি ||

র্তমান সময়ের এক আতংকের নাম (কোভিড-১৯ ) যাকে আমরা চিনে থাকি করোনা ভাইরাস বলে, এই ভাইরাস বিশ্বের বিভিন্ন দেশকে কাবু করে দিয়েছে। এই মূহুর্তে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ এক ভয়াবহ দিন পারি দিচ্ছে। অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও এর সংক্রমন দেখা দিয়েছে এই ভাইরাস। এই ভাইরাসের আক্রমনে দিশেহারা বিভিন্ন দেশ। অল্প সময়েই এই করোনা ভাইরাস ভয়াবহ রূপ নিতে পারে। অচল করে দিতে পারে একটি পুরো দেশ। তবে এই করোনা ভাইরাস থেকে আমাদের রক্ষা পাওয়ার শুধুমাত্রি একটি পথ ই খোলা রয়েছে আর তা হলো সচেতনতা।

কেবল মাত্র সচেতনতাই পারে আমাদের এই প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস থেকে মুক্তি দিতে।এই সময়ে আমাদের একটু সচেতন হয়ে চলাফেরা করতে হবে। বিশেষ করে গন পরিবহন এড়িয়ে চলতে হবে। তবে খুব প্রয়োজন পড়লে খুব সাবধানতা অবলম্বন করে চলাফেরা করতে হবে।গনপরিবহনে ব্যবহার করার সময় কিছু নিয়ম মেনে চলতে হবে। যেমন: মাস্ক ব্যাবহার করতে হবে, গনপরিবহনের যাত্রীদের কাছ থেকে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখতে হবে, হাচি, কাশি দেয়ার সময় মাস্ক বা রুমাল ব্যবহার করতে হবে।গনপরিবহনে চলাচলের সময় গাড়ির হাতল বা অন্যান্য স্টিল বা লোহার যন্ত্রাংশ বা হাতল ধরা থেকে বিরত থাকতে হবে। প্রয়োজনে হ্যান্ড গ্লাভস ব্যবহার করতে হবে।

কেবল সচেতনতাই পারে আমাদেরকে এই প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস থেকে মুক্তি দিতে।

এজন্য আমাদের বার বার সাবান দিয়ে ভালোভাবে হাত ধুয়ে নিতে হবে। অপ্রয়োজনে নাক ও মুখে হাত দেয়া থেকে বিরত থাকতে হবে। আমাদের মনে রাখতে হবে এই প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস এর মুক্তি বা চিকিৎসা আমাদের হাতেই আছে। আমরা চাইলেই একটু সচেতনতার মাধ্যমে এই করোনা ভাইরাস থেকে মুক্তি পেতে পারি রক্ষা করতে পারি আমাদের পরিবার ও আত্বীয়-স্বজনকে।

বাঁচাতে পারি পুরো একটি দেশ তথা একটি জাতিকে তাই আসুন আমরা সবাই মিলে একটু সচেতন হই।

কিছুদিনের জন্য নিজেকে গুটিয়ে রাখি আলাদা করে রাখি অন্য সবার কাছ থেকে। খুব বেশী প্রয়োজন ছাড়া কিছুদিনের জন্য ঘর থেকে বের না হই। বিভিন্ন ধরনের জনসমাবেশ যথাসম্ভব এড়িয়ে চলি।এভাবে কিছু নিয়ম কানুন মেনে চললে হয়তো আমাদের পরিবার এবং আমাদের দেশকে সুস্থ্য রাখা যাবে।সচল রাখা যাবে আমাদের অর্থনৈতিক চাকাকে।

Share
  •  
  •  

Leave a Reply